Blog

Blog

ওয়েবসাইট থেকে অর্থ উপার্জন করায় আসলে তেমন কোনও রহস্য নেই। একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া ও চমৎকার কৌশলের মাধ্যমে যে কেউ তার ওয়েবসাইট থেকে অর্থ আয় করতে পারেন। এমনকি, এই কাজকে আপনি আপনার পেশা হিসেবেও নিতে পারবেন যদি এতে আপনার ইচ্ছা এবং উৎসাহ থাকে। আমাদের দেশে অনেকেই ওয়েবসাইট তৈরি করেন। কেউ কোম্পানির জন্য, কেউ নিজের পণ্য/সেবা বিক্রি

কিছুদিন বাদে আবারো লিখতে বসলাম। আজকের লেখার বিষয়বস্তু একটু আলাদা। টাইটেল দেখে নিশ্চয়ই এতক্ষণে কিছুটা আঁচ করতে পেরেছেন! হ্যা, আমরা আজকে জানবো কিভাবে সহজেই আমাদের ব্যবসায়ের জন্য সুন্দর সুন্দর শ্লোগান খুঁজে বের করতে হয়। আমরা যারা নিজেদের ওয়েবসাইট নিয়ে কিংবা অনলাইন ষ্টোরের মাধ্যমে বিভিন্ন প্রোডাক্ট, সার্ভিস বিক্রি করছি তাদের অনেকেই এই ওয়েবসাইটের বা ব্যবসায়ের শ্লোগান

ডিজিটাল মার্কেটিং নিয়ে যারা কাজ করেন তাদের কাছে “কন্টেন্ট মার্কেটিং” এই টার্মটা বেশ পরিচিত। ইনবাউন্ড মার্কেটিং এর প্রায় পুরাটা জুড়েই কন্টেন্ট মার্কেটিং এর খেলা। কিন্তু আসলে এই কন্টেন্ট মার্কেটিং জিনিসটা কি এই নিয়ে অনেকের মনেই অনেক দ্বিধাদন্দ থাকে 😥 আদতে শাব্দিক অর্থে কন্টেন্টের মাধ্যমে মার্কেটিং করাকেই কন্টেন্ট মার্কেটিং বলা উচিত 👀 । কিন্তু কন্টেন্ট বলতে

২০১৯ সালে আপওয়ার্ক অন্যান্য ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেস গুলোর মতই অনেক প্রতিযোগিতাপূর্ণ হয়ে উঠেছে। তাই মার্কেটপ্লেসে কাজ শুরু করার আগে একটা নির্দিষ্ট সেক্টরে নিজেকে বেশ ভালোভাবে দক্ষ না করে উপায় নেই। যারা মোটামোটি কাজ শিখে মার্কেটপ্লেসে কাজের জন্য ছোটাছোটি করছেন তারা হয়তো কাজ ঠিকি শিখেছেন কিন্তু নিজের কাজ করার এই স্কিলটাকে বিক্রি করার জন্য ঠিক মত নিজেকে

আজ আপনি কতজন কে ‘ধন্যবাদ’ বলেছেন? আজকের এই লেখাটি আপনাকে এই প্রশ্ন করা থেকেই শুরু করলাম। আপাতত উত্তরটা তোলা থাক আপনার কাছেই। ‘ধন্যবাদ’ খুবই ছোট একটি শব্দ। কিন্তু ছোট হলেও এটার তাৎপর্য ও ভূমিকা বিশাল। প্রতিদিনের জীবনযাত্রায় যেই কয়েকটি আচরণ আমরা সচরাচরই করে থাকি,এর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে অন্য কাউকে তার সাহায্য কিংবা অবদানের জন্য ধন্যবাদ

নিজের কাজের জন্য প্রায় অনেক ধরণের ফন্ট সবসময় আমাদের দরকার হয়। তাই নিজের ব্লগে এই কালেকশন রেখে দিচ্ছি। কারো দরকার হলে নিজের কালেকশনে রেখে দিতে পারেন 🙂 শেয়ার করুন আপনার বন্ধুদের সাথে! Download 5000 Fonts FREE!

আমাদের দেশে আমরা দেখি প্রায়ই প্রচুর চাকুরী প্রার্থী ইন্টারভিউ তে ডাক পেলেও ঠিক মত পারফর্ম করতে পারেন না। আজকের এই যুগে একাডেমিক রেজাল্টই কাঙ্ক্ষিত চাকুরীর জন্য যথেষ্ট নয়। একাডেমিক পড়াশুনার পাশাপাশি বাড়তি কিছু স্কিল আপনাকে অন্যান্য প্রার্থীদের থেকে আলাদা করে দিতে পারে। আমাদের মধ্যে অনেকেই ছোটবেলায় একটা শব্দ শুনতাম “এক্সট্রা কারিকুলার এক্টিভিটিস”। একটা সময় আমরা

ফ্রেশ গ্রাজুয়েটদের জন্য মন মতো জব পাওয়া এখন বলতে গেলে প্রায় সোনার হরিণ।   কারণ মার্কেটে এতো বেশি জব সিকার যে এখন কর্পোরেট কোম্পানিগুলো নিজেদের রিক্রুটমেন্ট প্রসেসে নিজেদের মিনিমাম খরচে ম্যাক্সিমাম প্রডাক্টিভ কাউকে রিক্রুট করতে চায়। যেহেতু মার্কেটে জব সিকারের সাপ্লাই বেশি সেহেতু কম্পিটিশন তো বাড়বেই যার সম্পূর্ণ সুবিধা সবাই নিতে চায়। এটাই নরমাল সিস্টেম।

গতকাল অর্থাৎ ১৬ই জানুয়ারি, ২০১৮ তারিখে ইউটিউব তাদের অ্যাড মনেটাইজেশন সিস্টেমে নতুন একটি আপডেট এনেছে। কিছুদিন আগেও এমন একটা অবস্থা ছিল যে, যে কেউ কোনওভাবে ইউটিউব একাউন্ট করে চ্যানেল বানিয়ে ভিডিও দিয়েই সেটা অ্যাড মনেটাইজেশন চালু করে দিত কিন্তু গতবছর হুট করেই ইউটিউবের কাছ থেকে একটা সিদ্ধান্ত আসে যে অন্তত ১০ হাজার ভিউ ছাড়া মনেটাইজ করা

২০১২ সালের জানুয়ারি মাসের ৩১ তারিখ আমার বাসায় আমি নিজের কম্পিউটার কিনে আনি। আমার বেতন থেকে জমানো টাকা, আমার বাবার কিছু টাকা সাথে মেজো মামার কিছু কন্ট্রিবিউশনের সমন্বয়ে নতুন পিসি, বাংলালায়নের মডেম কিনে এনেছিলাম সেই সময়। ইন্টারনেটভিত্তিক কাজের আগ্রহ ছিল ২০০৯ সাল থেকেই, যখন বিভিন্ন পত্রিকা আর ম্যাগাজিনে অনলাইন ফ্রিল্যান্সিং নিয়ে লেখা পড়তাম।